Bangla24x7 Desk : গত ৩০ বছরে হজ যাত্রায় গিয়ে মৃত্যুর ঘটনা কম ঘটেনি। কখনও পদপিষ্ট হয়ে, কখনও তাঁবুতে আগুন লেগে গিয়ে বহু হজ যাত্রীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এবছরের হজ যাত্রা শুরু হয়েছে গত শুক্রবার থেকে। তারপর থেকেই তাপমাত্রা হু হু করে বেড়েছে। মাস খানেক আগে অকাল বন্যায় ভেসে গিয়েছিল আরবের প্রবিত্র ভূমি মক্কা, মদিনা। এবার তীব্র গরমে কার্যত মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে দেশটি। প্রায় ৫২ ডিগ্রির ভয়ংকর গরমে হজ যাত্রায় গিয়ে সেখানে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৫৫০ জন পুণ্যার্থীর। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে মর্গে মৃতদেহ রাখার জায়গা হচ্ছে না। ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ।

আরবের শীর্ষ দুই রাজনৈতিক নেতা মঙ্গলবার সংবাদ সংস্থা এএফপিকে জানান, মৃত ৫৫০ পুণ্যার্থীর মধ্যে বেশিরভাগই মিশরের। হজে এসে গরমের কারণে অসুস্থ হয়ে মিশরের কমপক্ষে ৩৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে। পাশাপাশি পদপিষ্ট হয়েও মিশরের এক নাগরিকের মৃত্যু হয়। পাশাপাশি জর্ডনের অন্তত ৬০ জন নাগরিকের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। এখানকার সবচেয়ে বড় মর্গ আল মুয়াইজেম। মৃতদেহের ভিড়ে তা কার্যত ভরে গিয়েছে। সময় যত গড়াচ্ছে পরিস্থিতি আরও গুরুতর আকার নিতে শুরু করেছে। অসুস্থ হয়ে পড়েছেন আরও কয়েক হাজার মানুষ। গরমের পাশাপাশি আরও একাধিক কারণে মোট মৃতের সংখ্যা পৌঁছে গিয়েছে ৫৭৭-এ। গত সোমবার অর্থাৎ ইদের দিন সৌদি আরবের তাপমাত্রা পৌঁছেছিল ৫১.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

সৌদির তাপমাত্রা যেভাবে বাড়ছে, তাতে হজ যাত্রা যে আগামিদিনে কঠিন হয়ে পড়বে, সেই সম্ভাবনার কথা আগেই বলা হয়েছিল। আর সেটাই এবার সত্যি হতে চলেছে। ইদের পরেরদিনই জানা গিয়েছে, হজে গিয়ে তিউনিশিয়ার ৩৫ জন বাসিন্দার মৃত্যু হয়েছে। অনেক যাত্রীর সন্ধানই পাচ্ছেন না আত্মীয়রা। হাসপাতালে হাসপাতালে চলছে খোঁজ। মৃত্যুর খবর এসেছে জর্ডন থেকেও। ইরানের সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, ১১ জন যাত্রীর মৃত্যু হয়েছে, ২৪ জন হাসপাতালে ভর্তি। এদিকে, মঙ্গলবারই ইন্দোনেশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে হজ যাত্রায় গিয়েছেন এমন ১৪০ জন নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। গরম নাকি অন্য কোনও কারণ, তা অবশ্য স্পষ্ট করেনি ইন্দোনেশিয়া।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *