img-2

Bangla24x7 Desk : আনন্দের ভাষণে দুর্নীতিকে আড়ালের অভিযোগ ! রাজ্যপালের অপসারণের দাবি বিজেপির। বাজেট অধিবেশনের সূচনায় রাজ্যপালের ভাষণকে ঘিরে উত্তপ্ত হল রাজ্য বিধানসভা। রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোসের বক্তব্যে দুর্নীতিকে আড়াল করা হয়েছে, এই অভিযোগ তুলে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে অধিবেশন কক্ষে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন বিজেপি বিধায়করা। বাজেট অধিবেশনের শুরুতে এদিন রীতি মেনে ভাষণ পাঠ করেন রাজ্যপাল। বিজেপি শিবিরের পক্ষ থেকে স্লোগান ভেসে আসে, ‘রাজ্যপাল গদি ছাড়ো।’ সাম্প্রতিককালে বিজেপির সঙ্গে রাজ্যপালের এমন সরাসরি সংঘাত বেনজির বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

এদিন রাজ্যপাল সি ভি আনন্দ বোস যখন গাড়িতে উঠছেন, তখন তাঁকে নিশানা করে গলার জোর আরও বাড়ালেন বিজেপি বিধায়কেরা। বিরোধী দলের মুখে শোনা গেল ‘শেম শেম’ স্লোগান। বুধবার শোক প্রস্তাব পাঠ শেষ হতেই বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন বিজেপি বিধায়করা। আইএসএফ বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকীকে জেলবন্দি করে রাখা হয়েছে কেন, সরকারপক্ষের কাছে সেই কৈফিয়ৎ চেয়ে স্লোগান তোলেন পদ্ম শিবিরের বিধায়করা।

img-3

বিজেপি বিধায়ক বঙ্কিম ঘোষ এদিন বলেন, ‘সবটাই অসত্য ভাষণ দিয়েছেন রাজ্যপাল। লিখে দেওয়া ভাষণ পাঠ করেছেন তিনি। আমাদের ধারণা ছিল এবার নতুন রাজ্যপাল একটু অন্য আঙ্গিকে বলবেন। কিন্তু যেভাবে রাজ্য সরকারের প্রশস্তি গাইলেন তিনি, তাতে অধিবেশন কক্ষে বসে থাকা যায় না। কোনওভাবে সমর্থন করা যায় না।’ রাজ্যপাল এদিন রাজ্য সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে ভাষণ দিয়েছেন বলেও দাবি করেন বিধায়ক। রাজ্য সরকারের লিখে দেওয়া ভাষণ কেন সংশোধন করলেন না রাজ্যপাল, প্রশ্ন তুলেছেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী।

রাজ্যপাল বক্তব্য পেশ করা শুরু করলে তাঁরা স্লোগান তোলেন, “চাকরি চোর সরকার, আর নেই দরকার।” রাজ্যপাল ৯ নম্বর অনুচ্ছেদ পড়তেই বিক্ষোভ এবং স্লোগানের মাত্রা আরও বৃদ্ধি পায়। ওই অনুচ্ছেদে লেখা ছিল, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে রাজ্যের শান্তির আবহ বজায় রয়েছে এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির পরিবেশ অক্ষুণ্ণ রয়েছে। রাজ্যপালের লিখিত বক্তব্যের প্রতিলিপি ছিঁড়ে ফেলে দেন তাঁরা। বিক্ষোভরত বিজেপি বিধায়কদের ভিড়ে দেখা যায় বীজপুরের বিধায়ক সাংসদ অর্জুন সিংহের পুত্র পবন সিংহকে। সে সবের মধ্যেই পবনকে দেখা গেল পদ্মশিবিরেই।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *