img-2

Bangla24x7 Desk : ফের মুখ্যমন্ত্রীকে ঘিরে ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান তুললেন বিজেপি কর্মীরা। হাওড়া স্টেশনে বঙ্গে ‘বন্দে ভারত’ এক্সপ্রেস  সূচনার আগেই তাল কাটল। বিজেপি কর্মীদের আচরণের প্রতিবাদ জানান দলেরই সাংসদ সুভাষ সরকার। তিনি সকলকে শান্ত হওয়ার জন্য ঘোষণা করেন। রেলমন্ত্রী নিজে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে হাত জোড় করে ক্ষমা চেয়ে নেন। ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী। তিনি মঞ্চে উঠলেন না। পিছনের সারিতে গিয়ে বসলেন। যদিও মূল অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। হাওড়া স্টেশনে সশরীরে উপস্থিত হন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, রেলমন্ত্রী অশ্বিণী বৈষ্ণব-সহ, বিজেপির সাংসদ, বিধায়ক-সহ একাধিক নেতা, মন্ত্রীরা।

img-3

হাওড়ায় অতিথিদের জন্য  তৈরি মঞ্চে বসেছিলেন বিজেপির সাংসদ, বিধায়করা। মুখ্যমন্ত্রী সেখানে পৌঁছতেই তাঁকে উদ্দেশ্য করে জোর গলায় ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান তুলতে থাকেন বিজেপি কর্মীরা।  তা মুখ্যমন্ত্রীর কানে পৌঁছনো মাত্র তাঁর শরীরী ভাষা বদলাতে থাকে। বোঝাই যায়, অত্যন্ত বিরক্ত, ক্ষুব্ধ হচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই বিশৃঙ্খলার সঙ্গে সঙ্গেই তা সামলানোর চেষ্টা করেন বিজেপি সাংসদ সুভাষ সরকার। তিনি বিজেপি কর্মীদের উদ্দেশে বলেন, এটা সরকারি অনুষ্ঠান। এখানে কারও উদ্দেশে এভাবে কিছু বলা একেবারেই শোভনীয় নয়। সকলে যেন শান্ত থাকেন।

“মুখ্যমন্ত্রী বাচ্চাদের মতো আচরণ করছেন ,অনেক পাপ করেছেন। তাই রাম স্লোগান সহ্য হয় না।” বন্দে ভারত উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে  লক্ষ্য করে মন্তব্য বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের। বিজেপির মনোজ টিগ্গা বলেন, ”যারা এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে, তারা কারা বলা মুশকিল। তবে সুরক্ষায় গাফিলতি ছিল।” আরপিএফ, জিআরপির গাফিলতি রয়েছে বলে তিনি অভিযোগ তোলেন। প্রশ্ন তোলেন কীভাবে ভিআইপি জোনে এই ঘটনা ঘটল। তবে এই ঘটনা পূর্ব পরিকল্পিত বলে মনে করছেন রেলের আধিকারিকরা।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *