img-2

শাসক দলের ১৯ জন নেতা-মন্ত্রীর সম্পত্তি বৃদ্ধি মামলাতে আগেই এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটকে পক্ষভূক্ত করার নির্দেশ দিয়েছিল কলকাতা হাই কোর্ট। এবার বিরোধী শিবির বিজেপি, কংগ্রেস এবং বামেদের ৩০ নেতারও নাম উঠে এল। যাদের বিরুদ্ধে ক্রমাগত সম্পত্তি বৃদ্ধির অভিযোগ রয়েছে। এনিয়ে কলকাতা হাই কোর্টে দায়ের হওয়া জনস্বার্থ মামলাতে ইডিকে পক্ষভুক্ত করার নির্দেশ দিল আদালত।img-3

৩০ জন বিরোধী নেতার মধ্যে নাম রয়েছে— সিপিআইএময়ের সূর্যকান্ত মিশ্র, অশোক ভট্টাচার্য, ধীরেন বাগদি এবং কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়। কংগ্রেসের অধীর রঞ্জন চৌধুরী, আবু হেনা, মোহিত সেনগুপ্ত, নেপাল মাহাতো, মইনুল হক, সাবিনা ইয়াসমিন, সমর মুখোপাধ্যায়, শাওনি সিংহ রায় এবং শেখ সফিউজ্জামান। তালিকায় বামফ্রন্টের চন্দন সাহা, রামচন্দ্র ডোম, দেবেশ দাস, বংশ গোপাল চৌধুরী, বাসুদেব খান, বাসুদেব মেটে, ধীরেন্দ্রনাথ মাহাতো, আনিসুর রহমান সরকার, আবুল হাসনাত, গৌরাঙ্গ চট্টোপাধ্যায়, খগেন মুর্মু, দেবাশিস বসু এবং অসিতকুমার মালিকের নাম রয়েছে। নাম রয়েছে বিজেপির রুপারানি মণ্ডল, তরুণকান্তি ঘোষ, সুধীর কুমার পান্ডে এবং ফনিভূষণ মাহাতোর।

তৃণমূলকে এ নিয়ে পালটা দিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী। তাঁর সাফ কথা, “এ নিয়ে সিবিআই, ইডি, সিআইডি যেই ডাকুক অধীর চৌধুরী হাসপাতালে শুয়ে থাকবে না। আয়করের সমস্ত হিসেব দেব।” একই সুর শোনা গিয়েছে শিলিগুড়ির প্রাক্তন মেয়র তথা বাম নেতা অশোক ভট্টাচার্যের গলাতেও। বললেন, “তৃণমূল কী বলল তাতে কিছু আসে যায় না। সবাই জানে আমার কী আছে, কোথায় থাকি। আদালত চাইলে তা জানিয়ে দেব।” তোপ দেগেছেন কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়ও। তাঁর কথায়, যা বলার আদালত জানতে চাইলে জবাব দেব। তৃণমূল তো চোরের দল। ওদের কথার জবাব দেব না।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *