img-2

Bangla24x7 Desk : জীবনের প্রথম বড় পরীক্ষার আগেই মর্মান্তির মৃত্যু মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর। জলপাইগুড়িতে পরীক্ষা দিতে যাওয়ার পথে হাতির হামলায় মৃত্যু হল এক ছাত্রের। এই ঘটনায় শোকের ছায়া এলাকায়। পরীক্ষার্থীর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর কথায়, “ছাত্রের মৃত্যু দুর্ভাগ্যজনক।”

img-3

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ছাত্রের নাম অর্জুন দাস। মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী। বাড়ি জলপাইগুড়ির বৈকন্ঠপুর জঙ্গল সংলগ্ন টাকিমারি এলাকায়। অর্জুন পাঁচিরাম নহাটা স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র। বাড়ি থেকে ২০-২৫ কিলোমিটার দূরে বেলাকোবা বটতল কেবলপাড়া হাই স্কুলে মাধ্যমিক পরীক্ষার সিট পড়েছিল তার। বৃহস্পতিবার সকালে বাবার সঙ্গে স্কুটিতে চেপে জঙ্গলের ভিতরের রাস্তা দিয়ে পরীক্ষাকেন্দ্রে যাচ্ছিল অর্জুন। সেই সময় দলছুট একটি দাঁতাল আচমকা হামলা চালায়। স্কুটি থেকে নেমে অর্জুনের বাবা সরে যান। ততক্ষণে হাতিটি অর্জুনের উপর হামলা চালায়। শুঁড়ে পেঁচিয়ে আছাড় মারে তাকে। মারাত্মকভাবে জখম হয় অর্জুন। সঙ্গে সঙ্গে তাকে উদ্ধার করে জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে নিয়ে আসার পথেই তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

বনদপ্তর বলছে, জঙ্গলের মধ্যে ওই রাস্তা চলাফেরা নিষিদ্ধ। তবু বহু মানুষ অত্যাধিক সাহস দেখিয়ে ওই রাস্তা দিয়ে আসাযাওয়া করেন। এধরনের ঘটনা এড়াতে শুক্রবার থেকে টাকিমারির ওই রাস্তায় নজরদারি চলবে। এদিন ঘটনার খবর পেয়ে বনকর্মীরা ও এনজেপি থানার মিলনপল্লী ফাঁড়ির পুলিশ মৃত অর্জুনের বাড়িতে যান। এই ঘটনার পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন এলাকার বাসিন্দারা। তাঁদের অভিযোগ, বন দফতরের গাফিলতিতেই এই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে। বন দফতরের (Forest Department) আধিকারিকদের সঠিক নজর থাকলেই আজ অর্জুনকে বেঘোরে প্রাণ হারাতে হত না বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *