Bangla24X7 Desk : গুজরাটের নেশামুক্তি কেন্দ্রে নৃশংস হত্য়াকাণ্ড। ৯০ মিনিট ধরে নৃশংস অত্যাচারের পর নেশাসক্ত যুবককে পিটিয়ে মারার অভিয়োগ উঠেছে কেন্দ্রের ম্য়ানেজার-সহ ৮ জন। তাদের সকলকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। যদিও যুবকের স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করে শেষকৃত্য সেরে ফেলেছিল অভিযুক্তরা। পরে অবশ্য পুলিশ খবর পেয়ে তদন্ত শুরু করতেই প্রকৃত সত্য উঠে আসে। ঘটনাটি ঘটেছে গুজরাটের পাটান এলাকায়। সুরাটের এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা পরিচালিত মেহসানা জেলার নেশামুক্তি কেন্দ্রে গত ছ’মাস ধরে ভরতি ছিলেন হার্দিক সুথার নামে এক যুবক। গত মাসে তাঁর মৃত্যু হয়। শেষকৃত্যও হয়ে গিয়েছিল।

img-2

পুলিশ জানিয়েছে, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি শৌচাগারের ঢুকে হাতের শিরা কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল হার্দিক। বিষয়টি জানতে পারে সন্দীপ-সহ সাত-আটজন শৌচাগারে ঢুকে তাঁর হাত-পা কষে বেঁধে দেয়। এরপর চলে অত্যাচার। সিসিটিভি ফুটেজ অনুযায়ী, প্রায় দু’ঘণ্টা ধরে প্লাস্টিকের মোটা পাইপ দিয়ে চলে মারধর। এরপর লাইটারের আগুনে পাইপের একাংশ গলিয়ে ফেলা হয়। আর সেই গরম তরল প্লাস্টিক ঢেলে দেওয়া হয়েছিল হার্দিকের গোপনাঙ্গে। এমনকী, তাঁর গোপনাঙ্গের লোম পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ। নিজেদের কৃতকর্ম ঢাকতে সন্দীপের গাড়িতে করে একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল হার্দিককে। সারা রাত গাড়িতেই পড়েছিল তাঁর দেহ। পরের দিন যুবকের আত্মীয়দের মৃত্যুর খবর জানানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *