Bangla24x7 Desk : বিধানসভায় ভাষণ চলাকালীন খৈনি খাওয়ার অভিযোগ! বিজেপি বিধায়ক মিহির গোস্বামীকে সতর্ক করলেন স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। ঘটনাটিকে নিয়ে হাসির রোল বিধানসভার অন্দরে। যদিও বিধায়কের দাবি, খৈনি খাচ্ছিলেন না তিনি। শুক্রবার দুপুরে বিধানসভায় বাজেট নিয়ে বক্তব্য রাখছিলেন এক বিধায়ক। সেই সময় বিজেপি বিধায়ক মিহির গোস্বামীকে দু’হাতে কিছু ডলতে দেখা যায়। বিষয়টা নজরে পড়ে স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ের। সঙ্গে সঙ্গে মিহিরবাবুকে সতর্ক করেন তিনি। বলেন, বিধানসভার অন্দরে খৈনি খাওয়া নিয়ম বিরুদ্ধে। যদিও সেই মন্তব্যকে বিশেষ গুরুত্ব দেননি তিনি। বরং হাতে থাকা সামগ্রী মুখে দিয়ে দেন। এই অদ্ভুত ঘটনায় হেসে ওঠেন বিধানসভায় থাকা দুই দলের বিধায়করা।

কিন্তু সত্যিই কী খৈনি ছিল বিধায়ক মিহির গোস্বামীর হাতে? বিধায়কের দাবি, খৈনি না জোয়ান ছিল তাঁর হাতে। যা দেখতে ছিল খানিকটা খৈনির মতো। বুঝতে ভুল হওয়ায় এই ঘটনা। উলটে স্পিকারকেই আক্রমণ করেছেন তিনি। তাঁর কথায়, “সকলেই দেখেছেন স্পিকার কীভাবে প্রতি কথায় আমাকে আটকানোর চেষ্টা করেছেন। তবে উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের জন্য যা বলা প্রয়োজন আমি তা বলবই।” পাশাপাশি ডিএ প্রসঙ্গেও এদিন মুখ খোলেন মিহির গোস্বামী!

এদিন বিধানসভায় নদী ভাঙন নিয়ে কথা হচ্ছিল। বিধানসভার অধ্যক্ষকে মিহির গোস্বামী বলেন, ‘আপনি বিরোধীদের কিছু বলতে দেন না।’ এরপর স্পিকারকে নিয়ে বেশ কিছু কথা বলেন মিহির। সেই সময় স্পিকার পাল্টা বলেন, আপনার বিরুদ্ধে প্রিভিলেজ করতে পারি। স্পিকার বলেন, ‘নদী ভাঙন নিয়ে সর্বদল কমিটি গঠন করে কেন্দ্রের কাছে যাওয়ার কথা ছিল। আপনারা (বিজেপি) সেই প্রস্তাব এনেছিলেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য আপনারা যাননি।’

জবাবে মিহির গোস্বামী বলেন, ‘নদী ভাঙন নিয়ে সর্বদল টিম করে যেতে রাজি আছি।’ স্পিকার বিরোধীদের ভূমিকায় খানিক হতাশা প্রকাশ করে বলেন, ‘আপনারাই প্রস্তাব দিয়েছিলেন যে রাজ্যের প্রতিনিধি দল কেন্দ্রের কাছে গিয়ে বিষয়গুলি উত্থাপন করবে। কিন্তু দুর্ভাগ্য, আপনারাই গেলেন না।’ যখন এই সব কথাবার্তা চলছে, তখন বিধানসভার অধিবেশন কক্ষে নিজের আসনে বসে খৈনির মতো দেখতে কিছু একটি ডলছিলেন মিহির গোস্বামী। আর তা দেখে আরও বিরক্ত হন স্পিকার। হাসতে হাসতেই একটু ধমকের সুরে খৈনি টিপতে নিষেধ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *