img-2

Bangla24x7 Desk : দার্জিলিং পুরসভায় রাজনৈতিক জটিলতা। পুরপ্রধানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবে সায় দিল কলকাতা হাই কোর্ট। খারিজ ক্ষমতাসীন হামরো পার্টির আবেদন। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি কৌশিক চন্দ জানিয়েছেন, আগামী বুধবার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনতে বাধা নেই। বিচারপতি কৌশক চন্দ জানান, ১৯৯৫ সালের পুর আইন অনুযায়ী অনাস্থা প্রস্তাব আনা হয়েছে। ফলে চেয়ারম্যানের ব্যর্থতা যে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তিনি তলবি সভা ডাকেননি। তাই তাঁর আরজি খারিজ।

img-3

গত ২৪ নভেম্বর দার্জিলিং পুরসভার চেয়ারম্যানের পদত্যাগ চেয়ে অনীত থাপার বিজিপিএমের ছ’জন কাউন্সিলর বৈঠক ডাকার জন্য নোটিস পাঠায়। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে মিটিং না হওয়ায় ১৩ ডিসেম্বর ভাইস চেয়ারম্যানকে ফের জানানো হয়। মুকুন্দ রাজ বারেলি-সহ ভারতীয় গোর্খা প্রজাতান্ত্রিক মোর্চার চারজন কাউন্সিলর আদালতে যান। ২৮ ডিসেম্বর ফের দিনক্ষণ স্থির হয়। তার বিরোধিতা করে হামরো পার্টির তরফে চেয়ারম্যান রীতেশ পোর্টেল ও ভাইস চেয়ারম্যান ইয়াঞ্জি শেরপা আদালতের দ্বারস্থ হয়ে অনাস্থা প্রস্তাবের স্থগিতাদেশের আরজি জানান। তাঁদের বক্তব্য ছিল, মাত্র ছ’জন কেন চিঠি লেখে ? এক তৃতীয়াংশ কাউন্সিলর অনাস্থার পক্ষে নেই।

৩২ আসন বিশিষ্ট দার্জিলিং পুরসভার এক কাউন্সিলর ২০১৭ সালে গণ্ডগোল শুরুর পরপরই ইস্তফা দিয়েছিলেন। পরে পুরসভা বিনয় তামাংপন্থীদের দখলে আসে। তারপরে ১৭ কাউন্সিলর নিজেদের বিমল গুরুংপন্থী বলে দাবি করেন। চলতি বছর পুরভোটে চমক দিয়ে দার্জিলিং পুরসভা দখল করে ব্যবসায়ী অজয় এডওয়ার্ডের হামরো পার্টি। বিরোধী হয় অনীত থাপার ভারতীয় গোর্খা প্রজাতান্ত্রিক মোর্চা। হামরো পার্টি ৬ জন পরে দলবদল করায় সমীকরণ বদলে যায়। তাঁরাই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা এনে পুরসভার দখল নিতে সচেষ্ট হন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *